তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি – একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণি: পরিবর্ধিত নতুন সংস্করণ

একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের জন্য যে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের সিলেবাস অনুযায়ী “তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি”র উপর আমার লেখা একটি বই গত বছর বাজারে এসেছিল – সেটা প্রায় সবাই জানে, মোটামুটি পুরানো একটা বিষয়। নতুন বিষয় হল যে, এই বছর বইটির পরিবর্ধিত নতুন সংস্করণ বের হচ্ছে। ছাপার ও বাঁধাইয়ের কাজ শেষ। এখন শুধু বইয়ের দোকানে আসার পালা।

Continue reading তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি – একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণি: পরিবর্ধিত নতুন সংস্করণ

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি – নিজেই যখন লেখক!

আমার লেখালেখির জগৎটা খুবই ছোট ছিল। নিজের ব্লগে লিখতাম, পাশাপাশি একটি কমিউনিটি ব্লগ ও কিছু ফোরামে অংশগ্রহণ করতাম – এই নিয়েই ছিল আমার লেখালেখির পরিধি। ইন্টারনেট ছাড়া ছাপার অক্ষরে নিজের লেখা বই দেখব – সে চিন্তা কখনোই করিনি। মাস্টার্সে যে থিসিসটা করেছিলাম, সেটা নিয়ে আমার লেখা একটি বই এখনও অবশ্য অ্যামাজনসহ বিভিন্ন অনলাইন কেনাকাটার সাইটে দেখতে পাওয়া যায়। তবে কী না, বিদেশী প্রকাশক বলে বইটি নিজের হাতে এখনও ছুঁয়ে দেখতে পারিনি (কোন একটা অদ্ভুত কারণে লেখক হিসেবে আমার পাওনা সৌজন্য কপিটিও আমি পাইনি!)। আসলে বই লেখার চিন্তা থেকে বইটি লেখা হয়নি – থিসিস লেখার পর সাইড প্রোডাক্ট হিসেবে বইটি তৈরি হয়। তাই বই লেখার যে আনন্দ, তা ঐ বইটি থেকে পাইনি; বরং বইটির সাথে থিসিস লেখার যন্ত্রণাই জড়িয়ে রয়েছে! তবে বই লিখতে না পারার এই অভাবটা বলতে গেলে “প্রায়” পুরোপুরি মিটে গেছে উচ্চমাধ্যমিক শ্রেণির জন্য “তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি” বইটি লিখে। (যারা এখনও জানেননা তাদের জানিয়ে রাখি যে, জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড ২০১৪ শিক্ষাবর্ষ থেকে উচ্চমাধ্যমিক স্তরে “তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি” বিষয়টিকে সকল বিভাগের জন্য বাধ্যতামূলক করেছে। ফলে বিজ্ঞান, মানবিক, ব্যবসায় শিক্ষাসহ সকল বিভাগের শিক্ষার্থীদেরই বিষয়টি পড়তে হবে। )


বই লেখার আদ্যোপান্ত

“তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি” বিষয়টির প্রতি সবসয়মই অন্য এক ধরণের আকর্ষণ অনুভব করি। তাই গত বছর যখন জানলাম যে “তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি” বিষয়টি প্রথমবারের মত ইন্টারমেডিয়েটে চালু করা হচ্ছে, তখনই এই বিষয়ের উপর নতুন বের হওয়া বই সম্পর্কে খোঁজ নিতে যাই। খোঁজ নিতে গিয়ে তো আক্কেলগুড়ুম! শুনলাম এই বিষয়ের উপর কমসেকম বিশখানা বই বেরিয়ে গেছে! এত বই তো আর পড়া সম্ভব নয়। তাই “বাজার-কাটতি” কয়েকটি বই যোগাড় করে পড়া শুরু করি। যে পরিমাণ উৎসাহ নিয়ে বইগুলো পড়া শুরু করেছিলাম, বই পড়তে গিয়ে তার চেয়েও বেশি পরিমান ভাটা পড়ল সেই উৎসাহে। বইগুলোতে সবকিছু কেমন যেন অস্পষ্টভাবে লেখা। প্রায় সব বইতেই সহজ-সরল বিষয়গুলোকে এত জটিল ও কঠিনভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে যে, অনেক ক্ষেত্রে নিজেই বিভ্রান্ত হয়ে গেছি! কোন একটি অদ্ভুত কারণে আমাদের দেশের কলেজের শিক্ষার্থীদের জন্য রচিত বইগুলো ঠিক “পাঠ্যপুস্তক” ধরণের হয়না, হয় অনেকটা “সহায়ক বই”য়ের মত। পাশের দেশ ভারতে বিভিন্ন বিষয়ের উপর এরকম প্রচুর সহায়ক বই পাওয়া যায়। আমার মনে হয় যে, আমাদের দেশের কলেজের শিক্ষার্থীদের জন্য বাংলায় লেখা বেশির ভাগ বই ভারতীয় সেসব সহায়ক বই অনুকরণ কিংবা অনুসরণ করেই লেখা হয়। যে কারণে সে অর্থে মানসম্মত বই খুব একটা দেখতে পাওয়া যায়না। জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের সিলেবাসটি এত মানসম্মত অথচ বেশিরভাগ বই সেই মান ধরে রাখতে পারেনি – ব্যাপারটি বেশ দুঃখজনক। আর দুঃখজনক ব্যাপার বলে নিজের মাঝেও একরকম দুঃখ-দুঃখভাব  তৈরি হল।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বইটির প্রচ্ছদ ডিজাইন করেছে বুয়েট পড়ুয়া ছোট বোন আমার নুযহাত ফারাহ। পুরো প্রচ্ছদটি ইঙ্কস্কেপে ডিজাইন করা কিন্তু!

Continue reading তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি – নিজেই যখন লেখক!

কিশোর আলো বা কিআ – একটি রিভিউ

যখন ছোট ছিলাম তখন পত্রিকার ছোটদের পাতাগুলো (নামগুলো এখন ভুলে গেছি) খুব মনযোগ দিয়ে পড়তাম। পাতাটির আগাগোড়া ভাজ ভাজা হয়ে পড়া হয়ে যেত। তবে প্রতি সপ্তাহে মাত্র একটা ছোটদের পাতায় কী আর পোষায়? আর প্রতিটি পাতাই ছিল একই রকম – একটা কি দুইটা গল্প, কয়েকটা ছড়া, কখনোবা বিখ্যাত কারো কবিতা হয়তো একটাদুইটা থাকতো, কয়েকটা জোক্স, আর আমার মতই ছোট্ট ছোট্ট পাঠকদের আঁকা কয়েকটি ছবি এইতো! এতটুকুতেই পুরে যেত পুরো একটা পাতা সব একঘেঁয়ে ব্যাপার স্যাপার। তারপরও ছোটদের পাতাটুকুকে আপন মনে হত খুব – মনে হত যেন বড়দের শুকনো পত্রিকার মাঝে নিজের একটা রঙিন পৃথিবী! কত আগ্রহ নিয়ে থাকতাম সপ্তাহে এই পাতাটির জন্য!

  Continue reading কিশোর আলো বা কিআ – একটি রিভিউ

জাগো

স্বপ্ন তো আমরা কতই দেখেছি এবং দেখেও যাচ্ছি। কিন্তু দেখে যাওয়া স্বপ্নকে কীভাবে বাস্তবতায় রূপ দিতে হয় সেটা ক’জনেরই বা জানা আছে? আমাদের বেশিরভাগেরই দৌড় কেবল ঐ স্বপ্ন দেখা পর্যন্তই। স্বপ্ন দেখে সেটাকে আঁকড়ে ধরে কীভাবে তাকে বাস্তবে গড়ে নিতে হয় সেটা দেখিয়েছেন খিজির হায়াত খান! “জাগো” সিনেমাটিতে তিনি একদল তরুণের গল্প শুনিয়েছেন, যারা দেশের টানে উজ্জীবিত হয়ে অসম্ভব এক অধরা স্বপ্নকে টেনে হিঁচড়ে বাস্তব জগতের মাটিতে নামিয়ে এনেছে।


Continue reading জাগো

রঙ্গবাণী

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর গাড়িচালককে জিজ্ঞেস করলাম, তুমি কী পাস? সে বলল, ‘‘আমি তো স্যার ফাইভ পাস।’’ সেও প্রধানমন্ত্রীর গাড়ি ভালোভাবে চালায়।

নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান

ধর্মমতে মুসলমানদের কোনো অকালমৃত্যু নেই। তারেক (চলচ্চিত্র পরিচালক তারেক মাসুদ) ও মিশুক (সাংবাদিক মিশুক মুনীর) তাদের জন্য নির্ধারিত সময়েই মারা গেছে।

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী মজিবুর রহমান ফকির

Continue reading রঙ্গবাণী

আলু তবে আলুই রয়ে গেল …

গুগল ট্রান্সলেট তার ঝুলিতে বাংলা ভাষা যোগ করেছে এটা পুরনো কথা। এটা যে পরীক্ষামূলক অবস্থায় আছে সেটাও পুরনো কথা। আর একমাত্র ‘এক্সাম-পরীক্ষা’ ছাড়া অন্য যে কোন ‘এক্সপেরিমেন্ট-পরীক্ষা’র ক্ষেত্রে যে সব ধরণের দোষ ত্রুটি উপেক্ষা করে সেসব দোষ শোধরাণোতেই সবাই বিশেষ মনোযোগী হয় – সেসবও জানা কথা। তবে এই সব জানা কথাটিই সম্ভবত ‘অজানা’ রয়ে গিয়েছে প্রথম আলো পত্রিকার!

গুগল ট্রান্সলেট বাংলা ভাষা পরীক্ষামূলকভাবে সাপোর্ট করছে – বেশিদিন হয়নি। এটা নিঃসন্দেহে বাংলা ভাষা ভাষীদের জন্য প্রচন্ড আনন্দের খবর। চিন্তা করে দেখুন – বিশ্বের অন্যান্য দেশের ওয়েবসাইট কিংবা ডকুমেন্ট আমরা আমাদের প্রিয় বাংলা ভাষায় পড়তে পারব – ব্যাপারটা চিন্তা করেই তো ভালো লাগছে। বাংলাভাষা পৃথিবীর সবচেয়ে মধুর ভাষা হিসেবে যতটাই খ্যাত, ব্যাকরণগত দিক থেকে ততটাই জটিল। এই জটিলতার কারণেই একজন বিদেশী মানুষের পক্ষে আমাদের ভাষা আত্মস্থ করাটা কঠিন হয়ে পড়ে। মানুষের ক্ষেত্রেই যদি এমন কঠিন মনে হয়, তবে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার পক্ষে যে এই ভাষাটিকে আয়ত্ত্ব করা ‘অতিশয়’ কঠিন হবে – সেটা বলাই বাহুল্য! গুগল ট্রান্সলেটরও একটি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা। সে গণিত বোঝে, ভাষা বোঝেনা। তাই এটি নিজের বোঝার সুবিধার জন্য প্রতিটি ভাষাকে গাণিতিকভাবে রূপান্তরের চেষ্টা করে। বাংলাভাষা নিয়ে সেই অর্থে গাণিতিক কাজ একেবারেই হয়নি। তাই গুগল ট্রান্সলেটরের জন্যও ভাষাটা নিয়ে কাজ করাটা বেশ কঠিন। তারপরও অনেক বাংলা ভাষাপ্রেমী স্বেচ্ছাসেবকরা চেষ্টা করে যাচ্ছেন ঠিকঠাকমত গুগল ট্রান্সলেটরকে দাঁড় করাবার জন্য। একেবারে প্রাথমিক অবস্থায় রয়েছে বলে এখনো অনেক ভুলভাল দেখাচ্ছে। কিন্তু এসব ভুলভাল ঠিক করার দায়িত্বও কিন্তু আমাদের। সত্যি বলতে কী, এ প্রজেক্টটা এখন ছোট একটা বাচ্চার মত, আপনি যতই এর ভুল শুধরে দেবেন এটি ততই পরিপূর্ণ হয়ে উঠবে। কিভাবে এসব ভুল সংশোধনে অবদান রাখা যায় – তা নিয়ে ব্লগার জামালউদ্দিন খানের একটা দারুণ লেখা রয়েছে।

Continue reading আলু তবে আলুই রয়ে গেল …

মনা ভাইকে আর কত ধনী করবেন?

বলুন দেখি, কতজন লোক ‘ভ্যাট’ শব্দটার সাথে পরিচিত? উত্তরে নিশ্চয়ই বলবেন যে ‘ভ্যাট’ শুনেনি এমন কেউ আছে নাকি? হয়তো কেউ কেউ আছেন। যারা এখনো শুনেননি তারা দয়া করে একটু এখান থেকে ঘুরে আসুন। সহজ করে বললে, প্রতিটি জিনিস কিনলে তার উপর নির্দিষ্ট হারে একটা কর (ট্যাক্স) দিতে হয় সরকারকে। এই কর বা ট্যাক্সকেই ভ্যাট বলা হয়। আপনার দেয়া ট্যাক্সের এই টাকাটা জমা হয় সরকারী কোষাগারে। এই ট্যাক্সের টাকা দিয়েই কিন্তু দেশের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজকর্ম হয়ে থাকে। তাই ভ্যাট দেয়া মানে সরকারকে দেশের মানুষের জন্য কাজ করার সুযোগ করে দেয়া।

Continue reading মনা ভাইকে আর কত ধনী করবেন?

হতাশা’র মাঝে এক চিলতে অনুপ্রেরণা

সব বাচ্চাদেরই মনে হয় ছোটবেলার স্বপ্ন থাকে যে তারা লেখাপড়া করে বড় হবে, বড় হলে দেশের প্রেসিডেন্ট বা প্রধানমন্ত্রী হবে। তারপর যখন তারা বড় হতে থাকে, তখন তারা বুঝতে পারে যে বড় বড় নেতা-নেত্রী হবার জন্য আসলে লেখাপড়ার কোন দরকারই নেই। যে যত মুর্খ, তার তত বেশি ক্ষমতা, সে তত বড় নেতা। যে যত বড় নেতা, তার তত বেশি সম্পত্তি। এসব নেতারা শেয়ার বাজার কেলেংকারি করলেও তাদের নাম সামনে আসেনা, অন্যের সম্পদ মেরে কেটে জবর দখল করলেও কেউ কিছু বলেনা, দেশটাকে বাপ-দাদার নামে নামকরণ ফেললেও কেউ কিছু আপত্তি করেনা। অন্যের অধিকার বঞ্চিত করাটা এদের পেশা, অন্যকে ধোঁকা দেয়া এদের ধর্ম, মানুষ মেরে ফেলা এদের নেশা। নামের আগে এরা নিজেদের নেতা বললেও, আদতে এরা কুকুর-বিড়ালের চেয়েও নগন্য জীব। নিজের জন্যই এরা বাঁচে – অনেকটা কীট-পতংগের মত।

Continue reading হতাশা’র মাঝে এক চিলতে অনুপ্রেরণা