বাংলায় লিখুন বাংলা!

মোবাইলে কিংবা কম্পিউটারে যারা টপাটপ বাংলিশ এ লিখে যাচ্ছে,তাদের কাছে জিনিসটা সুখকর হতে পারে, কিন্তু আমার মত প্রচুর মানুষের কাছে ব্যাপারটা কিন্তু খুবই পীড়াদায়ক! আগে বলে নেই- “বাংলিশ” বলতে আমি “বাংলা ভাষাকে ইংলিশ অক্ষর দিয়ে লেখা” বোঝাচ্ছি! এটার আরেকটা নাম হচ্ছে “টাকলা”। বাংলিশ বা টাকলা কেন পীড়াদায়ক তা বুঝতে নিচের স্ক্রিনশটগুলো “কষ্ট করে” পড়ুন।


অ্যাজকে কাটপদি বেল্লুর ট্রেন স্টেশনে আমার পারশেনাল মুবেইল টা হ্যারেয়ে জায়ী ... আয়ী মুহুরততে কারো শাট্টে যগা যগ কুরার মুট্টো ন্যামব্যার নেয়ী ... থেয়ী শুবায়ইর প্রুট্টে অনরড রয়ীলো যার যার মোবেইল ন্যামবুর টা আমার কিউমেন্ট বক্স ও ইনবক্সে ডেলে কুভ কশি হুবো 

হমম..আজ গালাম উডভিশ ইই ভতি ইনফর্মেশন ইই.. ১সট ইই আস্ক করলাম আপনার আয় কানায় ২,৩০পম এর কন ব্যাচ ইই সিট আসায়... ওনি আস্ক করলান ভাই আপনি কন ভেরসিটি স্টুডেন্ট.. ওনকায় ডাকায় মনায় হল ওনি আমার সাটায় ফাজলামি করটা সায়... পরায় ভাব নেয়া কটা বলা স্টার্ট করলো... মজাজ যা কার্প হয় সায়... আটো ভাব কিসার বুজি না... ঔ আপনাডার বান্ড  "উডভিশ" এর নেম বারায় গাসায় বলায় কি ভাব বারায় গাসায়... ভাব টা না নেলায় পার্টান... #সায়েন্স ল্যাব সাকা :৩ :৩ :৩
মন পাখি টুয়ি ভুজলে না রা আম্র মন আর কটা..
 ভোজার মটো হই নে রা টর খমোটা......
 ভুজভে যকন টাকবো না রা যাবো ওনাক ডুরা...
 টকোন পাখি কাডভে রা কোকার জল ফালা...
 আই অলওয়েজ লাভ ইউ পপলে..জান কাম ব্যাকমাই লাইফ..আই অলওয়েজ মিস ইউ..

(দয়া করে,ওপরের স্ক্রিনশটের মন্তব্য দুটোও পড়বেন)

ডিজিটাল জুয়া আখন পটাক গোরা গোরা, ক্রিকেট আক্টা পপুলার খালা কিন্তু আই খালা আখন টরুন্ডার কাছা হয়া গাছা জুয়া খালা, পটাক বলা বাটা ধরা টাকার বাজি, হাইরা যুব সমাজ!!!

পড়া শেষ? তাহলে এবার বলুন – এটাকে কি বাংলা বল মনে হচ্ছে? মনে হবার কোন কারণই নেই, কারণ “বাংলিশ” বা “টাকলা” হচ্ছে বাংলা ভাষার বিকৃত রূপ। বিকৃতরূপ সেটা যে ভাষারই হোক না কেন, তা মোটেও গ্রহণযোগ্য কিছু নয়।

ধরুন আপনার নামটা যদি “জিয়াউল হক” না লিখে “Geaul Hoc” লেখা হয়, নিশ্চয়ই তা আপনার ভাল লাগবেনা। এই একই অনুভূতিটা বাংলা ভাষার প্রতিও থাকা উচিৎ সবার। বিকৃতরূপ সবসময়ই ঘৃণিত ও পরিতাজ্য। ভাষার এই বিকৃত রূপ যে কতটা ভয়াবহ হতে পারে তা দেখার জন্য মুরাদ টাকলা থেকে ঘুরে আসুন (ওপরের স্ক্রিনশটগুলো কিন্তু মুরাদ টাকলার সৌজন্যে পাওয়া)। স্তম্ভিত হয়ে যাবেন বাংলিশের ব্যবহার দেখে।

বাংলা হচ্ছে এমন একটি ভাষা যাদের নিজেদের বর্ণমালা রয়েছে। শুনে হয়তো অবাক হবেন পৃথিবীর খুব কম ভাষারই নিজস্ব বর্ণমালা রয়েছে। যেমন ধরুন, মালয়শিয়া বা ইন্দোনেশিয়া। এদের নিজেদের ভাষা রয়েছে, কিন্তু নিজস্ব বর্ণমালা নেই। তাই তাদেরকে ইংলিশ বর্ণমালা ব্যবহার করে কাজ চালাতে হয়। আবার ইংলিশ ভাষারও নিজস্ব বর্ণমালা নেই। তারা ব্যবহার করে লাতিন বর্ণমালা। সেই হিসেবে মালয়শিয়া বা ইন্দোনেশিয়াও আদতে লাতিন বর্ণমালা ব্যবহার করে। সে তুলনায় আমরা কত ঐতিহ্যবাহী চিন্তা করুন! আমাদের নিজেদের ভাষা নিজেদের বর্ণমালা রয়েছে। নিজের ঐতিহ্যকে এভাবে লাথি মেরে অন্য ভাষার ধার করা বর্ণমালায় নিজের ভাষা প্রকাশ করার মাঝে আমি কোন মুন্সিয়ানা দেখি না। বরং আমি ব্যক্তিগতভাবে এসব লোককে নিচুশ্রেণির মানুষ মনে করি, যারা নিজের মান-সম্মান-ঐতিহ্যকে মূল্য দেয় না।

আমরাই একমাত্র জাতি যারা এই বর্ণমালার জন্য ১৯৫২ সালে রক্ত দিয়েছি। অথচ ষাট বছর পর সেই বর্ণমালাকেই কীনা ছুঁড়ে ফেলে অন্য ভাষার বর্ণমালা দিয়ে লিখছি! যারা কম্পিউটার/মোবাইল ব্যবহার করেন, যাদের মাতৃভাষা বাংলা, তারা যদি এই ২০১৭ সালে এসেও কম্পিউটারে/মোবাইলে বাংলা লিখতে না পারেন তবে আমার মতে সেটা অপরাধ হিসেবে গণ্য হওয়া উচিত। অভ্র বা রিদ্মিক এর মত সফটওয়্যার থাকার পরও যদি কোন বাংলাভাষী বাংলিশ ব্যবহার করে, তবে তার রুচিবোধ আর শিক্ষাগতযোগ্যতা প্রশ্নবিদ্ধ থেকে যায়।

6 thoughts on “বাংলায় লিখুন বাংলা!”

  1. ভাই মুরাদ টাকল ভাষার অনুবাদ দিলেন না? কিছুই তো বুঝতে পারলাম না!
    সুন্দর লেখার জন্য ধন্যবাদ। আরো ধন্যবাদ স্পষ্ট করে কিছু মানুষকে অপমান করার জন্য। এই মানুষগুলোকে অনেক বলার পরও এরা বদলাতে চায় না।

    1. আমি নিজেই ঐগুলোর অর্থ বুঝি নাই, অনুবাদ কিভাবে দিব? 🤓

      1. হাহাহা আমি বুঝতে পেরেছি কি লিখেছে, টাইপ করার আর ধৈর্য হলো না। 😉

  2. আপনি কিভাবে পারলেন মুরাদ টাকলার স্ট্যাটাস অনুবাদ (আক্ষরিক) করতে! এত ধৈর্য হলো কেমনে? আমি তো খুব দরকার না পড়লে এমন স্ট্যাটাস পড়িই না!

    1. আমিও পড়ি না। কিন্তু এই লেখার স্বার্থে করতে হল। অন্তত টাকলা সম্প্রদায় বুঝুক যে তাদের ভাষা আমরা কিভাবে দেখি!

Leave a Reply