Munir Hasan, Sayem and The Dustbins

Sayem is my friend. I know him from my IUT life, that’s quite a long time. We studied in the same department and in the same year. Even our rooms in the dorm were in the same floor. He is a Lecturer & Assistant Proctor of Stamford University Bangladesh. He is a soft spoken nice guy. He is so gentle that he tolerates trouble for others and never complains anything unless it is unbearable (I’ve seen that earlier). Now, ‘that’ Sayem, my friend Sayem is facing troubles for almost 6 months and which is now seemed to be tremendously unbearable for him and his family.

In Sayem’s neighborhood, there are some uncovered dustbins which his neighbor-apartment-folks use in a daily basis (to dump their wastes). And those fetidly dustbins can alone ruins anyone’s life, in this case they are ruining Sayem and his family. Moreover those dustbins are put by his neighbor-apartment-folks just beside his bedroom. Just imagine how tough life beside fetidly dustbins can be!

Well … after living beside a hell (almost), Sayem and his wife complained several times to the apartment folks as well as the ‘Secretary’ of that apartment building. When Sayem and his family found out that the secretary of that building is Mr. Munir Hasan, they hoped for the betterments. Why did they hope so? Because Mr. Munir Hasan is a renowned personality of Bangladesh, as he is involved with BDOSN and General Secretary of Math Olympiad in Bangladesh (if I am not wrong he is affiliated with the most popular Bangladeshi daily newspaper Prothom Alo too). That’s why when Sayem and his wife complained to him, they thought their nightmare was going to be ended. It was six months ago. But nothing happened after that. Sayem and his wife kept complaining for the past six months but Mr. Munir Hasan did not take any steps. It seems that, he does not take their complains seriously.

Sayem's House View
Uncovered dustbins just beside Sayem's bedroom

So as an alternative steps Sayem is trying to let other people know about his miserable condition because of Mr. Munir Hasan. He wrote a note (with the picture) and shared it via Facebook. So that other people can also request Mr. Munir Hasan to take Sayem’s complains seriously into his account. I am quoting Sayem’s complete note as it is:

Dear friends,

Assalamualaikum. Hope u all are passing a very good time on the occasion of holy Eid-ul-Azha. But may be I will not. Let me explain the matter that will help you to understand. I need some suggestion from all of you regarding the issue.

The pictures attached with this message is taken from my bedroom. It shows a dustbin and this is just beside my bedroom. And this dustbin belongs to the Sheltech Apartments that is just beside my home. It consists of 66 flats. So, you can imagine how much waste material is produced there every day. Every moment we have to suffer a lot due to this. It is very difficult for us to stay in our bedroom even in our home.

The most astonishing part is that, the Secretary of this big building is Mr. Munir Hasan, General Secretary of Math Olympiad. He is a very renowned person and I think many of you know him. He was a teacher of BUET and also an ex-buetian. We often see him in newspapers for his good activities and contribution to the nation. He is very much close to Dr. Zafar Iqbal Sir. My wife and I knocked him several times from last 6 months for this problem. But, yet he hasn’t solved the issue. After knocking several times, he just managed a polythene temporarily to cover the wastage and promised us to solve the issue permanently. But where is that solution? We gave him an example of Prince Tower (just opposite to Sheltech Tower) about their waste management. We tried several times to contact him but he refused.

Now, my question is how can we get relief from it? Is it a sign of civilization from a renowned person like Mr. Munir Hasan? Holy Eid-ul-Azha is knocking at the door. We are very anxious about the wastage in this occasion. It is tough enough for us to bear the smell every day. Can you imagine what will be during Eid-ul-Azha?

We tried a lot to solve the problem but failed due to lack of cooperation from Mr. Munir Hasan. For that reason we need some help from you. Please suggest us what we can do in a peaceful way.

Thanks to all.
Sayem

It is really sad to find out that the remarkable persons (at least whom we thought as remarkable) are not that much remarkable in their day to day life. I hope that, Mr. Munir Hasan will be sympathetic enough to take care Sayem’s complain and treat his neighbor as a ‘true neighbor’ as well.

If you read this post and if you want to help Sayem, then please share this post with others. And if you have a personal relationship or friendship with Mr. Munir Hasan, then please request him to take care Sayem’s complain seriously. Also you can email Mr. Munir Hasan requesting him to consider Sayem’s complain as soon as possible.

14 thoughts on “Munir Hasan, Sayem and The Dustbins”

  1. মুনির হাসান বিডিওএসএন’র না? ভুয়া অরগানাইজেশনের লোকজনতো ভুয়া হবেই। এদের কাছ থেকে আর কি আশা করা যেতে পারে?

  2. Pingback: Topsy.com
  3. মুনির হাসান কে সুইপার পোস্টে নিয়োগ দেবার জন্য সুপারিশ করছি। 😀 😀

  4. Nice post Adnan Quaium Vai. This is a ridiculous situation that your friend Mr. Sayem is facing. I am facing such a kind of problem in my locality also. I think the best response Sayem Vai can get from the “Sheltech Tower” authority. He should personally meet the In-Charge of the building and discuss on the issue. Moreover I believe the best you can have from is YOU. So don’t waste your time to request anyone for help.

  5. আদনান ভাই, আপনার বন্ধুর সমস্যা গুলো পড়ে খুবই দুঃখ পেলাম।মন চাইতেছে এই পোষ্টের লিঙ্কটা তার ফেসবুক ওয়ালে পোষ্ট করি।

  6. I think, the complains should also include a guideline to possible solutions to this problem.

    Covering this place with a corrugated sheet may improve the aesthetics and may contribute reducing smell a bit. To reduce direct smell, the shed should not have openings towards the neighbor, ensuring air flow along the side of the building.

  7. খুবই খারাপ লাগছে সব বিস্তারিত শুনে। মুনির হাসানকে তো পত্রিকায় গনিত ও দেশ জাতি নিয়া বড় বড় লেকচার দিতে দেখি। অথচ তাঁর জন্য সামান্য একটা কাজ, সেটা করতে অনায়াসে ৬ মাস কাটিয়ে দিয়েছেন। ধিক এই সব গলাবাজদের 👿 আর মানুষেরই বা সিভিক সেন্স এত কমে যায়? 👿

  8. Thanks to all for your comments. I have sent this link to Mr. Munir Hasan with a mail as a reply. If you want to see, then I will post it here.

  9. মুনির হোসেন স্যারের ফেসবুক ওয়ালে আপনার পেজের লিঙ্কটা শেয়ার করেছিলাম। মুনির স্যার তার ভুল ঠিকই স্বীকার করেছেন। বিডিওএসএন এর কিছু চামচা স্বাভাবের লোকগুলি ফালতু কমেন্ট করিয়া গেছে।যদিও এই চামচা গুলার কাজই এইসব ফালতু কথা বলে বেড়ানো।

    1. রাব্বি হোসেন, শুনে খুব ভালো লাগলো যে মুনির হাসানের টনক নড়েছে। এবার যদি সায়েমের সমস্যার সমাধান হয়! বেচারা ছয় মাস ধরে অভিযোগ করতে করতে ক্লান্ত হয়ে অবশেষে অনলাইনে উন্মুক্ত সাহায্য চেয়ে চিঠি লিখে। একজন মানুষ কতটুকু নিরুপায় ও উপেক্ষিত হলে নিজের ব্যক্তিগত সমস্যা এভাবে সবার সামনে তুলে ধরে সেটা ভেবে দেখা দরকার। একেবারেই সাধারণ এই সমস্যার সমাধানটা আরো আগে করে ফেললে বিষয়টা নিয়ে এতটা তোলপাড় হতোনা। তাছাড়া শামীমভাই উপরের একটা পোস্টে কিছু ব্যাপার উল্লেখ করেছেন, সেগুলোও ভেবে দেখা দরকার।

      যাই হোক, সব কথার মূল কথা হল – যেই সমস্যাটি নিয়ে এই পোস্ট, সায়েমের সেই সমস্যাটি যাতে দ্রুত সমাধান হয় সে কামনা করি।

  10. Many many thanks to Rabbi Hossain for posting this blog in Munir Hasan’s wall. But it is very unfortunate that, Mr. Munir’s comment regarding this issue is false and intolerable in some points.I have informed him about this. I was shocked to see his comment.
    Thanks to Tanim for his writings…

  11. The foll­wing are all the comments:

    Munir Hasan: সত্য, তবে ছবিগুলো একটি স্থায়ী ডাস্টবিনের নয়। আমাদের ভবনে ৬৬টি ফ্ল্যবট আছে। ময়লা সংগ্রহকারি সব ফ্ল্যাট থেকে ময়লা সংগ্রহ করে ভবনের একটি নির্দিষ্ট স্থানে জমা করে। তারপর যারা প্রতিদিন ময়লা নিয়ে যায় তাদের গাড়িতে করে সেগুলো সিটি কর্পোরেশনের নির্ধ…ারিত জায়গায় ফেলে দেওয়া হয়। আমার ধারণা বেশিরভাগ এপার্টমেন্টে এমন সিস্টেম চালু রয়েছে কারণ আমাদের গার্বেজ ডিসপোজালের কোন আধুনিক সিস্টেম নাই। সংগ্রহ করার পর ডিসপোজালের আগ পর্যন্ত, আগে এগুলো এমনিতে খোলা রেখে দেওযা হতো। এ বিষয়টি কখনোই কেয়াল করা হয়নি। তবে, মাস কয়েক আগে আমাদের প্রতিবেশী সায়েম সাহেব আমার দৃষ্টি আকর্ষন করেন। তখন আমরা এ সময়কালে (ময়লা সংগ্রহ এবং ডিসপোজাল এর মধ্যবর্তী সময়) ময়লাটি মোটা পলিথিন দিয়ে ঢেকে রাখার ব্যবস্থা নেই। তাছাড়া, যারা গারবেজ ডিজপোজালের জন্য দায়িত্বে আছে তাদেরকে এই সময়টা কমিয়ে আনার নির্দেশ দেই। ফলে তারা ময়লা সংগ্রহের পর অর্ল্পসময়ের মধ্যে সেটি অপসারণ করে। যে ছবিগুলো দেওয়া হয়েছে সেগুলো গারবেজ অপসারণের পূর্বাহ্নে ময়লার গাড়িতে বোঝাই করা ময়লা। এগুলো এরপরপরই অপসারিত হয়। অপসারণের পর পরই প্রতিদিন ঐ জায়গাটি ধুয়ে ফেলার নির্দেশ রয়েছে। গতকাল ১৪/১১/২০১০ তারিখে সায়েম সাহেব আমাকে ই-মেইল করে তার নোটটির ব্যাপারে দৃষ্টি আকর্ষন করেন। সে সময়ে আমি আমাদের ভবনের সুপারভাইজারকে ডেকে গারবেজ ডিসপোজালের আরো কোন ভাল ব্যবস্থা করা যায় কিনা তার জন্য দায়িত্ব দিয়েছি। ঈদের পর পর এই ময়লা সংগ্রহ ও ডিসপোজালের মধ্যবর্তী সময়ে ময়লা রাখার স্থানটিকে একটি স্থায়ী কাঠামোর মধ্যে নিয়ে আসার আমরা চেষ্টা করবো। বিষয়টি আমি কাল সায়েস সাহেবকে মেইল করে জানিয়েছি।

    আমি এ ভবনের মালিক সমিতির সম্পাদক (যদিও যতোটা সময় এ সব কাজে দেওয়া দরকার সেটি আমি দিতে পারিনা)। কাজে, সায়েম সাহেবের দুর্ভোগের দায় আমি নিচ্ছি। আশা করছি ঈদের পর আমরা একটি পার্মানেন্ট সলিউশন করতে পারবো। যাতে ময়লা সংগ্রহ ও ভবনের বাইরে ফেলার মধ্যার্তী সময়ে সেগুলো অন্যের পীড়ার কারণ না হয়।

    Nasir Khan Saikat পোস্টের কমেন্টগুলি থেকে কয়েকজনকে নতুন করে চিনতে পেরে খুবই আনন্দিত :-॥

    Jabed Mor­shed সৈকত, এসব কথা গুরুত্ব দেয়াটা বোকামি । তবে লোক চিনার ব্যাপারটা মনে হয় ঠিক আছে । যাই হোক, ঈদ মোবারক ।

    Fer­dous Ahmed Tanin রসেল জনরে আমার সামনে পড়তে মানা কইরেন সবাই। ফালতু কথার একটা সীমা থাকে আর সে সব সময় সীমাহীন ফালতু কথা বইলা বেড়ায়।

    Asif Mohammed Adnan ridiculous.

    Nasir Khan Saikat ছানা-পোনা গুলি দেখি খুব লাফাচ্ছে

    My reply was the following:

    1. You wrote in your wall that the wastes remain uncov­ered for a small time but its not true. The waste is dis­posed there from the drums sev­eral times a day and most of the time this is kept uncov­ered. But it is taken away only twice/thrice a day. So, the photo rep­re­sents the sce­nario of almost whole day. May be you … ordered them to wash the place but they only sweep that place with­out water. Please observe a whole day to real­ize the actual situation.

    2. You think that waste dis­posal sys­tem of most apart­ments is like yours. But it is totally wrong. If you don’t believe us then go and see your­self. You will get hun­dreds of example.

    3. We want to repeat one thing that we have men­tioned ear­lier. Please don’t make any dust­bin here. Just arrange some drums and dis­pose the wastes from drum directly to the deliv­ery van.

Leave a Reply